Saturday, 26 September 2015 14:37

অচেনা ব্যক্তিকে বাচাতে সাগরে নববধূর ঝাপ Featured

0

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : চীনে এক নববধূর ‘অদ্ভূত’ মানবিক কাণ্ডে জয়জয়কার পড়ে গেছে। যদিও তিনি যে চেষ্টাটা চালিয়েছিলেন তা সফল হয়নি। তবে এ কাজের জন্য চীনা মিডিয়া তাকে উপাধি দিয়েছে- ‘শুদ্ধতম নববধূ’ হিসেবে।

গিউও ইউয়ানইউয়ান নামের ওই নববধূ পেশায় নার্স। উত্তর-পূর্ব চীনের ডালিয়ান সৈকতে তিনি তার বিবাহ-পরবর্তী ছবি তোলায় ব্যস্ত ছিলেন। তখন তিনি পুরোদস্তুর নতুন বউ, বিয়ের গাউন পরা ছিলেন। খুব যত্ন করে বিয়ের মেকাপও নেওয়া ছিল। ফটোসেশনের একপর্যায়ে শুনতে

পান সৈকতে ডুবন্ত এক মানুষের চিৎকার।

তার ছবি তুলতে থাকা ফটোগ্রাফারসহ আশপাশের সবাইকে অবাক করে দিয়ে তিনি রকেটের গতিতে দৌড়ে যানে এবং লাফিয়ে পড়েন ১০০ ফুট দূরের পানিতে ডুবতে থাকা লোকটিকে উদ্ধার করতে। এসময় তিনি সমুদ্রের তিন ফিট উঁচু এবড়ো-থেবড়ো বিপজ্জনক পাড় থেকে লাফ দেন। পিপলস ডেইলি জানায়, লোকটিকে উদ্ধার তীরে আনাও হয়- কিন্তু ততক্ষণে মারা গেছেন তিনি।

গত ২১ সেপ্টেম্বরের ঘটনা এটি।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান,  সেদিন সকাল দশটার দিকে ডুবন্ত  ওই লোকটি সাহায্যের জন্য চিৎকার করছিলে। গিউও ইউয়ানইউয়ানসহ আশপাশে অবস্থানরত অনেকেই ছুটে যায় তাকে বাঁচাতে। সবার সম্মিলিত চেষ্টায় তাকে তীরে টেনে আনাও হয়। নববধূ গিউও স্বাসপ্রশ্বাস সচল করার কৌশল সিপিআর (কার্ডওপালমোনারি রিসাসসিটাশেন) পদ্ধতি অনুসরণ করেন অচেনা লোকটির ওপর। ২০ মিনিট ধরে তার মুখে মুখ লাগিয়ে অক্সিজেন দিয়ে যান গিউও। কিন্তু কিছুতেই কিছু হয়নি।

প্রসঙ্গত, সেখানে উপস্থিত কারও সিপিআর বিষয়ে প্রশিক্ষণ ছিল না। গিউও পেশায় একজন কার্ডিয়াক নার্স এবং তার এ বিষয়ে প্রশিক্ষণ ছিল।

উদ্ধার অভিযানে গিয়ে গিউওর বিয়ের পোশাকটি বরবাদ হয়ে যায়, নষ্ট হয়ে যায় অনেক যত্নে করা রূপসজ্জাও, এমনকি ভেঙে যায় তার নখও।

গিউওর স্বামী ঝিয়াও লিউ নিজের পরোপকারী বাহাদুর স্ত্রীকে নিয়ে সগর্ব প্রতিক্রিয়া জানান। তিনি স্ত্রী সম্পর্কে বলেন, সাধারণত সে লোকজনকে উপকার করে আনন্দ পায় আর তার এই বিষয়টাই আমি খুব পছন্দ করি।

লোকটিকে  উদ্ধারে দৌড় লাগিয়েছিলেন ঝিয়াও সাহেব নিজেও। কিন্তু দৌড়ে পারেননি নবপরিনীতা স্ত্রীর সঙ্গে।

তবে ঘটনা প্রসঙ্গে গিইওর প্রতিক্রিয়া কী?

২৫ বছল বয়সী এই নববধূ বলেন, ওই সময়ে আমার শুধু মনে ছিল আমি একজন সেবিকা। আমার পেশায় দায়িত্ববোধের অবস্থান হচ্ছে যে কোনো ধরনের নববধূর সাজ-পোশাকের চেয়ে অনেক ওপরে।  

উদ্ধার অভিযানের ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়েছে। সেসব ছবি দেখলেই বোঝা যায়- কতটা বেপরোয়া ছিলেন সেবিকা গিউও অচেনা বিপদগ্রস্ত লোকটিকে বাঁচাতে। দায়িত্ববোধের চরম রূপ প্রদর্শন করেন তিনি সেদিন। তাই ‘শুদ্ধতম বা সুন্দরীতম নববধূ’ তিনি বিবেচিত হতেই পারেন- এ বিষয়ে কারও সন্দেহ না হওয়ারই কথা।